সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

ইসলাম - গাদীরে খুম

গাদীরে খুমের উপেক্ষাই মুসলমানদের দূর্দশার কারণ। এবং দুঃখজনক হলেও সত্য, এর গোটা ব্যাপারটাই মুসলমানদের in-house ব্যাপার; বহিঃশত্রুর কোনো হস্তক্ষেপে নয়।
গাদীরে খুমের ঘটনা কী?
মহানবী (সা.) তাঁর জীবনের শেষ হজ্জ্ব শেষে ফিরবার পথে ১৮ই জিলহজ্জ্ব তারিখে গাদীরে খুম নামক স্থানে থামলেন এবং সকল সাহাবীকে একত্র হবার নির্দেশ দিলেন। সেখানে তিনি ইমাম আলী (আ.)-কে সাথে নিয়ে মঞ্চে উঠে একটি সংক্ষিপ্ত ভাষণ দিলেন। এই ভাষণে মুসলিম উম্মাহর জন্য গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা ছিল। তার মাঝে প্রথমটি ছিল "কুরআন ও আহলে বাইতের" অনুসরণের আদেশ, এবং দ্বিতীয়টি ছিল "ইমাম আলী(আ.) এর অভিষেক", অর্থাৎ হযরত আলী (আ.) কে মুসলিম জাতির মওলা ঘোষণা করা। [মওলা শব্দের অনেক অর্থ হয়, যেমন মনিব, দাস, বন্ধু, অভিভাবক, শাসক ইত্যাদি।]
"কুরআন ও আহলে বাইত"
বিভিন্ন সহীহ সূত্রে বর্ণিত, হাদীসে সাকালাইন নামে পরিচিতি এই হাদীসের মূল কথাটি মোটামুটি এরকম:
নবীজি (সা.) বললেন, "আমি তোমাদের মাঝে দুটি গুরুত্বপূর্ণ/ভারী/মূল্যবান বস্তু রেখে যাচ্ছি, আমি দেখব তোমরা এর সাথে কী আচরণ করো।"
এরপর তিনি বললেন, "একটি হলো আল্লাহর কিতাব, অপরটি হলো আমার আহলে বাইত। এই দুটি কখনো পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন হবে না।" [আহলে বাইত: আলী (আ.), হাসান (আ.), হোসেন (আ.), ফাতেমা (সা.)]
হযরত আলী (আ.)কে মওলা ঘোষণা:
"মুমিনদের জীবনের উপরে তাদের নিজেদের চেয়ে কি আমি বেশি অধিকারপ্রাপ্ত নই?" একথা বলে উপস্থিত সাহাবীগণের সম্মতি আদায় করে নবীজি (সা.) হযরত আলী(আ.) এর হাত উঁচু করে ঘোষণা করেন, "আমি যার মওলা, অতঃপর এই আলী তার মওলা।" এছাড়াও তিনি আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেন, “হে আল্লাহ! যে তাকে সমর্থন করবে তাকে তুমিও সমর্থন কর; যে তার সাথে শত্রুতা করবে, তার সাথে তুমিও শত্রুতা কর; যে তাকে ভালোবাসবে, তাকে তুমিও ভালোবাস; যে তাকে ঘৃণা করবে, তাকে তুমিও ঘৃণা কর; যে তাকে সাহায্য করবে, তাকে তুমিও সাহায্য কর এবং যে তাকে সাহায্য থেকে বিরত থাকবে, তাকে তুমিও সাহায্য থেকে বিরত থাক এবং সে যেদিকে ঘোরে, সত্যকেও তার সাথে সেদিকে ঘুরিয়ে দাও।”
এবং তখন আল্লাহ তায়ালা এই আয়াত নাযিল করেন:
“আজ আমি তোমাদের জন্য তোমাদের দীনকে পূর্ণাঙ্গ করলাম এবং তোমাদের উপর আমার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করলাম এবং ইসলামকে তোমাদের দীন হিসেবে মনোনীত করলাম।” (সূরা মায়েদা : ৩)”
……………………………………………………………….
অতএব, এটাই স্বাভাবিক যে, মুহাম্মদ (সা.) এর ওফাতের পর মুসলমানেরা ইমাম আলী (আ.) কে মওলা হিসেবে গ্রহণ করবে, অর্থাৎ সকল বিষয়ে যেইভাবে নবীজি মুহাম্মদ (সা.) এর কাছে যেত, ইমাম আলী (আ.) এর নিকটও সেইভাবে যাবেন। আর প্রথম নির্দেশনা অনুযায়ী কুরআন ও আহলে বাইতকে আঁকড়ে ধরবে, অর্থাৎ অনুসরণ করবে। মোদ্দা কথা, মুহাম্মদ (সা.) এর ঘোষণা মোতাবেক মুসলিম উম্মাহর অনুসরণ করতে হবে কুরআন, আহলে বাইত ও হযরত আলী (আ.)কে। কিন্তু নবীজি (সা.) এর ওফাতের পরে তা ঐক্যবদ্ধভাবে হয়নি, বরং এরপর থেকে ঐতিহাসিকভাবেই স্বল্পসংখ্যক মুসলিম নবীজির শেষ নির্দেশনা মেনে চলেছে বা এখনো চলছে। তখন থেকেই আহলে বাইতের অনুসারীরা একটি ধারা হলো, আর বাকি সিংহভাগ মুসলিম আরেকটি ধারা হলো (যথাক্রমে শিয়া ও সুন্নি নামে পরিচিতি / লেবেল / ট্যাগিং লাভ করলো)।
যদিও ফরম্যাটটা আমার পছন্দ না, তবুও সংক্ষিপ্ত রাখার স্বার্থে প্রশ্নোত্তর আকারে কিছু প্রাসঙ্গিক বিষয় দিচ্ছি।
** “কুরআন, আহলে বাইত ও হযরত আলী (রা.)কে অনুসরণ করতে বলেছেন, তাহলে হাদীস গেল কই? রাসূল (সা.)-ই বাদ? অথচ আমরাতো শুনে এসেছি “কুরআন ও সুন্নাহ” অনুসরণের কথা।”
→ প্রথমতঃ, আহলে বাইতের ব্যাপারে হাদীসটি সর্বোচ্চ সহীহ বলে পরিচিত গ্রন্থগুলোর (সিহাহ সিত্তাহর) সহীহ সূত্রে প্রাপ্ত হাদীস আর মওলা ঘোষণার হাদীসটিতো মুতাওয়াতির হাদীস (সর্বোচ্চ সংখ্যক সূত্রে বর্ণিত বিশুদ্ধ হাদীস); অতএব অন্ততঃ বর্ণনাগুলি সত্য; আর যেহেতু নবীজি (সা.) এর আদেশ, সেহেতু সেটার উপর আগ বাড়িয়ে কথা বলা স্পর্ধাই বটে। দ্বিতীয়তঃ, কুরআন ও আহলে বাইত (ইমাম আলী (আ.)-ও আহলে বাইতের অন্তর্ভুক্ত) -- এই দুটির অনুসরণ করলে এর মাঝেই নবীজির পূর্ণাঙ্গ সুন্নাত পাওয়া সম্ভব, কেননা নবীজি (সা.) এর সবচেয়ে কাছের মানুষ ছিলেন তাঁরাই। এছাড়াও, কুরআন ও আহলে বাইতের অনুসরণ মানেই কি সুন্নাহ পরিত্যাগ? মায়ের আদেশ মেনে চলবে, একথার মানে কি পিতার অবাধ্য হও?
**“রেফারেন্স?”
→ চাইলে দেব। ইচ্ছা থাকলে নিজেই বই / নেট ঘেঁটে বের করে নিতে পারবেন, তবুও চাইলে দেব।
**“এতদিন তো এসব হাদীস শুনি নাই, গাদীরে খুম, মওলা আলী…?”
→ কেন শোনেন নাই, আমাদের দেশের হুজুররা এবং ঐতিহাসিকভাবে সিংহভাগ মুসলিম আলেম কেন এই হাদীসগুলি প্রচার করেন নাই, গোপন করেছেন, সেই ইতিহাস দীর্ঘ। কিন্তু আমি শুনি নাই মানেই যে তা ভুল, তা কিন্তু নয়। আমি আগে শুনিনি, এমন জিনিস যদি যাচাই করে দেখি সহীহ, সত্য -- তবে গ্রহণ করাই উত্তম। কারণ “মুমিনেরা মনোযোগ দিয়ে কথা শোনে, অতঃপর তা থেকে যা উত্তম তা গ্রহণ করে।” (কুরআন)।
**“শিয়ারা আলীকে মওলা বলে, মওলা অর্থ প্রভু, শিরক করে...”
→ একটা সুস্পষ্ট হাদীস আনার পর এজাতীয় কথা বলা বিস্ময়কর! তাহলে হযরত আবু বকর, হযরত ওমর -- উনারা কেন হযরত আলী (আ.) কে গিয়ে বললেন, আজ থেকে আপনি আমাদের মওলা? লক্ষাধিক সাহাবী কেন নবীজিকে জিজ্ঞাসা করলেন না, মওলা মানে কী? সবচেয়ে বড় কথা, হযরত আলী (আ.) কে যদি মওলা মানতে আমার খটকা লাগে, তবে নবীজি (সা.) কেই জিজ্ঞাসা করা উচিত, কেন আপনি আলী(আ.) কে মওলা বললেন!
বরং বাস্তবতা হলো, মওলা শব্দের যেই যেই অর্থ মুহাম্মদ (সা.) এর উপর প্রযোজ্য, সেই সকল অর্থেই মওলা শব্দ ইমাম আলী (আ.) এর উপর প্রযোজ্য। নবীজি (সা.) আমাদের মওলা অর্থাৎ নেতা, অভিভাবক, শাসক, বন্ধু...। একইভাবে হযরত আলী (আ.)-ও আমাদের নেতা, অভিভাবক, শাসক, বন্ধু...।
**“আহলে বাইত কারা?”
→ সর্বসম্মতভাবে হযরত আলী(আ.), ইমাম হাসান (আ.), ইমাম হোসেন (আ.) ও হযরত ফাতেমা (সা.) -- এই চারজন হলেন আহলে বাইত। আল্লাহর রাসূলের স্ত্রীগণ আহলে বাইতের অন্তর্ভুক্ত নন, সিহাহ সিত্তাহতে এর রেফারেন্স পাওয়া যায় (দেখুন “হাদীসে কিসা”তে স্ত্রীর প্রশ্নের জবাবে নবীজি (সা.) এর উত্তর)।
**“হযরত আলী (আ.) নবীজি (সা.) এর আহলে বাইত, মানে ঘরের লোক হন কিভাবে?”
→ “আয়াতে তাতহীর (৩৩:৩৩) এ আল্লাহপাক আহলে বাইতকে পবিত্র করার কথা বলেছেন। এছাড়াও ৪২:২৩ নং আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, “হে রাসূল! আপনি বলে দিন, আমি আমার রেসালাতের বিনিময়ে আমার নিকটাত্মীয়ের (প্রতি) ভালবাসা ছাড়া আর কিছুই চাই না।” লক্ষ্যণীয়, আর কোনো নবী রাসূল বাণী পৌঁছানোর বিনিময়ে কিছু দাবী না করলেও মুহাম্মদ (সা.) তা করেছেন, এবং অবশ্যই আহলে বাইত সেই নিকটাত্মীয়ের অন্তর্ভুক্ত। এখন প্রশ্ন হলো, ইমাম আলী (আ.) তো নবীজি (সা.) এর চাচাতো ভাই। তিনি কিভাবে আহলে বাইত (ঘরের লোক) হন? যদিও হাদীসে কিসাতে নবীজি (সা.) এর সুস্পষ্ট ঘোষণাই আছে যে এই চারজন হলেন আহলে বাইত, তবুও, যদি নবীজি (সা.) এর মুখের বানীতে আমাদের হৃদয় সন্তুষ্ট না হয় তো কুরআনে এর ইঙ্গিত রয়েছে। নূহ (আ.)কে আল্লাহ তায়ালা যখন বললেন তোমার পরিবারকে উঠিয়ে নাও নৌকায়, তাদের উপর ভয় আসবে না, এবং কাফির পুত্রের মৃত্যুর পর নৌকা জুদি পাহাড়ে ঠেকলে অবতরণের পর নূহ (আ.) যখন আল্লাহকে বললেন যে কিন্তু আমার ছেলেতো আমার পরিবারের অংশ, তখন আল্লাহ বললেন, নিশ্চয়ই তোমার ছেলে তোমার পরিবারের অংশ নয় (“আহল” নয়)। অর্থাৎ, যদিও রক্তের সন্তান, একই বাইত-এ (ঘরে) বসবাস, কিন্তু তবুও আল্লাহপাকের কাছে আহলে বাইত একটি বিশেষ অর্থ গ্রহণ করেছে, তা হলো, ঈমান-আমলের দিক থেকে যারা এক পরিবারের ন্যায়। (লক্ষ্যনীয়, এবং আল্লাহর রাসুল (সা.) নিজেই তাঁর স্ত্রীকে সেখানে অন্তর্ভুক্ত করেননি।)
**“হযরত আলী (রা.) না বলে ইমাম আলী (আ.) বলা কেন? আলাইহিসসালাম তো নবীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। শিয়ারা আলীকে নবী মানে।“
→ এত সুস্পষ্ট দলিল পাবার পরও মনে এজাতীয় কথা আসা, এবং তা মুখে প্রকাশ করা নিতান্তই অগ্রহণযোগ্য। হযরত জিব্রাইল (আ.) কি নবী? মরিয়ম (আ.) কি নবী ছিলেন? আলাইহিসসালাম -- তাঁর উপরে সালাম -- এই কথার মাঝে কি কোনো দোষ আছে? বরং অন্যান্য সাহাবীর ক্ষেত্রে রাদিয়াল্লাহ আনহু বলার চল থাকলেও যেহেতু সাহাবীদের মাঝেও ইমাম আলী (আ.) বিশেষভাবে আহলে বাইতের অন্তর্ভুক্ত, আর যেহেতু আহলে বাইতের উপর সালাম প্রেরণের রেয়াজ আছে, তাই নামের শেষে আ. বলা / লেখা হয়।
**“মওলা অর্থ বন্ধু, মুসলমানেরা পরস্পরের বন্ধু, রাসুলুল্লাহ (সা.) এটাই বুঝিয়েছেন।”
→ আল্লাহর রাসুল (সা.) নিজে যেখানে বলে যাননি যে আমি মওলা বলতে হাবীব (বন্ধু) বুঝিয়েছি, সেখানে আমরা নিজেদের ইচ্ছামত অর্থ choose করার অধিকার রাখি কি? বরং সতর্কতা হিসেবে হলেও মওলা শব্দের সম্ভব সকল অর্থে হযরত আলী (আ.) কে গ্রহণ করতে হবে।
http://nure-alam.blogspot.com/2016/09/blog-post.html
……………………………………………………..
শেষে এসে নবীজি (সা.) এর বিদায়ী ভাষণের ঐ বাক্যটি স্মরণ করা দরকার: “তোমরা এই দুই (কুরআন ও আহলে বাইত) এর সাথে কী আচরণ করো তা আমি দেখব।” কুরআন তো আমরা পড়িই না, আর “আলেম/হুজুর” হিসেবে পরিচিত অধিকাংশ লোক ঐতিহাসিকভাবে আহলে বাইতের মান মর্যাদা গোপন করেছে সাধারণ মুসলমানদের থেকে, তাঁদের অনুসরণ যে ফরজ, তা গোপন করেছে, মওলা মুহাম্মদ (সা.) এর পর মওলা আলী (আ.) কে কিভাবে মানতে হবে, তা গোপন করেছে। ইমাম আলী (আ.) এর শিক্ষা গোপন করেছে।
নিশ্চয়ই আমরা কুরআন ও আহলে বাইতের উপর যে অন্যায় করেছি / করছি, তা নবীজি (সা.) দেখছেন। যেই আলে মুহাম্মদ এর উপর সালাম প্রেরণ না করলে নামাজই হয় না, সেই মুহাম্মদের বংশধারার সাথে মুসলিম উম্মাহর (অধিকাংশ) “আলেমদের (?!)” ঐতিহাসিক শত্রুতা নবীজি (সা.) ঠিকই দেখছেন। সম্ভবতঃ আমাদের এমন কাজের কারণেই নবীজি (সা.) কেয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে অভিযোগ করবেন: “নিশ্চয়ই আমার সম্প্রদায় এই কুরআনকে পরিত্যক্ত করে রেখেছিল।”
এই অভিযোগ আর কারো বিরুদ্ধে নয়, এই আমাদেরই বিরুদ্ধে হবে, যদি আমরা এতকিছু জানা বোঝার পরও কুরআনকে ফেলে রাখি, আহলে বাইতের অনুসরণ না করি, ইমাম আলী (আ.)কে মওলা হিসেবে মানার নির্দেশ অমান্য করি। আর কুরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেই দিয়েছেন, আমাদের ঈমানই নেই যদি আমাদের অন্তরের ভিতরে আমরা নবীজির সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিতৃষ্ণা / অপছন্দ অনুভব করি (৪:৬৫)। আর নবীজি (সা.) এর আগে বেড়ে যদি মওলা আলী (আ.)কে অমান্য করি, মওলা হিসেবে না মানার অজুহাত হিসেবে “মওলা বলতে বন্ধু বুঝিয়েছেন” এসব যুক্তি দেই, তবে আমাদের সকল কর্ম নিষ্ফল হয়ে যাবে (৪৯:২)।
নিশ্চয়ই আল্লাহ আমাদের অন্তরের খরব জানেন, এবং তাঁর দিকেই প্রত্যাবর্তন: ইন্না লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাইহি রজিউন।
আসসালামু আলাইকুম ওয়া আলা ইবাদিল্লাহিস সলিহিন।
নূরে আলম
সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৬।
জিলহজ্জ্ব ১৮, ১৪৩৭।

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

টাকার ইতিহাস, মানি মেকানিজম ও ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের মহা জুলুম

(লেখাটি পিডিএফ আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।) **জালিমের বিরুদ্ধে বুদ্ধিবৃত্তিক সংগ্রাম**

জুলুমের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের মাস হলো মহররম মাস।
জালিমের মুখোশ উন্মোচনের মাস মহররম।
জুলুমের কূটকৌশল উন্মোচনের মাস মহররম।
আধুনিক সেকুলার গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় লেজিসলেশান (সংসদ), আর্মড ফোর্সেস (আর্মি) ও জুডিশিয়ারি (আদালত) হলো এক মহা জুলুমের ছদ্মবেশী তিন যন্ত্র, যারা পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করে জুলুম টিকিয়ে রাখার জন্য।
তারচেয়েও বড় জালিম হলো big corporations: বড় বড় মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি, যারা তাবৎ দুনিয়াকে দাস বানিয়ে রেখেছে।
আর এই দাসত্বের শৃঙ্খলে তারা আমাদেরকে আবদ্ধ করেছে ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের মাধ্যমে:
টাকা আমাদের শ্রমকে ধারণ করে, অথচ সেই টাকার মূল্য আপ-ডাউন করায় অন্যরা -- ব্যাংক ব্যবসায়ীরা!
টাকা আমাদের শ্রমকে সঞ্চয় করার মাধ্যম,
অথচ সেই টাকা আমরা প্রিন্ট করি না, প্রিন্ট করে (ব্যাংকের আড়ালে) কিছু ব্যবসায়ী! সেই টাকার মান কমে যাওয়া (বা বেড়ে যাওয়া) আমরা নির্ধারণ করি না -- নির্ধারণ করে ব্যাঙ্ক (ব্যবসায়ীরা)!
ইমাম হুসাইনের (আ.) প্রতিবাদী চেতনাকে ধারণ করব, শোকাহত হব কারবালার স্মরণে, অভিশাপ দেব জালি…

ধর্মব্যবসা: মুসলমানদের হাতে ইসলাম ধ্বংসের অতীত-বর্তমান (১)

ভূমিকা যদিও পলিটিকাল-রিলিজিয়াস ইস্যুতে নিশ্ছিদ্র আর্গুমেন্ট উপস্থাপন করে আলোচনা করার অভ্যাস আমার, কিন্তু এখানে বিস্তারিত ইতিহাস তুলে ধরে আর্গুমেন্ট করার প্রথমতঃ ইচ্ছা নেই, দ্বিতীয়তঃ সময় ও সুযোগ নেই। আমি যা সত্য বলে জানি, তা সংক্ষেপে তুলে ধরছি। যারা আমার উপর আস্থা রাখেন তাদের জন্য এই লেখাটি সোর্স অব ইনফরমেশান, উন্মুক্ত হৃদয়ের মানুষদের জন্য সত্য অনুসন্ধানের নতুন কিছু টপিক, আর প্রেজুডিসড ধর্মান্ধ রোগগ্রস্ত অন্তরের জন্য রোগ বৃদ্ধির উছিলা। শেষ পর্যন্ত আর্গুমেন্ট ও ডায়লগের দুয়ার উন্মুক্ত রাখার পক্ষপাতী আমি, কিন্তু সেই আর্গুমেন্ট অবশ্যই সত্য উন্মোচনের নিয়তে হওয়া উচিত, নিজের দীর্ঘদিনের লালিত বিশ্বাস ও ধ্যান ধারণাকে প্রতিষ্ঠা করবার উদ্দেশ্যে নয়। মক্কা-মদীনা: মুহাম্মদ (সা.) থেকে আলে-সৌদ (৬২৯-১৯২৪) এদেশের অধিকাংশ মানুষ মক্কা-মদীনার ইতিহাস কেবল এতটুকু জানেন যে, মুহাম্মদ (সা.) মদীনায় ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন এবং পরবর্তীতে বিনা রক্তপাতে মক্কা বিজয় করেন। কিন্তু প্রায় চৌদ্দশ’ বছর আগে মুহাম্মদ (সা.) এর প্রতিষ্ঠিত ইসলামী রাষ্ট্র থেকে আজকের রাজতান্ত্রিক সৌদি আরবের ইতিহাস কম মানুষই জানেন। পবিত্র ম…

পিস টিভি, জাকির নায়েক ও এজিদ প্রসঙ্গ

সম্প্রতি গুলশান হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ইন্ডিয়া ও বাংলাদেশে পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধ করা হয়েছে। আমি তখন দিল্লীতে ছিলাম। দেশে ফিরে শুনি পিস টিভি ব্যান করা হয়েছে বাংলাদেশে, এবং তার আগে ইন্ডিয়াতে।

আমার বাসায় টিভি নেই, এবং আমি জাকির নায়েকের লেকচার শুনিও না। কিংবা পিস টিভিতে যারা লেকচার দেন, বাংলা কিংবা ইংলিশ -- কোনোটাই শুনি না; প্রয়োজন হয় না। তাছাড়া আমার ইসলামের বুঝ জাকির নায়েকসহ পিস টিভি ও তার বক্তাদেরকে ইন জেনারেল আমার কাছে অগ্রহণযোগ্য করে তুলেছে। Peace TV বন্ধ হওয়ায় এদেশে বিকৃত ইসলাম প্রসারের গতি কমলো -- এটাই আমার মনে হয়েছে।

একইসাথে আমি এটাও মনে করি যে, যেই অভিযোগ পিস টিভিকে ব্যান করা হয়েছে, তা নিছক অজুহাত। জাকির নায়েক কখনো জঙ্গীবাদকে উস্কে দিয়েছেন বলে আমার জানা নেই। কিংবা পিস টিভির লেকচার শুনে শুনে ISIS জঙ্গীরা সন্ত্রাসী হয়েছে -- এটা নিতান্তই হাস্যকর কথা। ISIS এর ধর্মতাত্ত্বিক বেইজ সম্পর্কে মোটেও ধারণা নেই, এমন লোকের পক্ষেই কেবল ISIS এর জন্য জাকির নায়েককে দোষ দেয়া সম্ভব। একইসাথে আমি এ বিষয়েও সচেতন যে, পিস টিভি বন্ধ করা হয়েছে আমাদের সরকারের রেগুলার “ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের অংশ” হিসেবে, এই জন…