সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

বাংলাদেশ - সুইসাইড

বাংলাদেশে প্রতিবছর গড়ে ১০ হাজার মানুষ সুইসাইড করে। দশ হাজার!!
এর মাঝে মেজরিটিই ইয়াং ছেলেমেয়ে। যে মানুষটা হারিয়ে গেল তো হারিয়েই গেল। দু'দিন দুঃখ প্রকাশ করে সবাই চলে যাচ্ছে।
ইউরোপ আমেরিকার উন্নত দেশগুলোতে প্রচুর সুইসাইড হয়। বহুবছর তারা এর প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেয়নি। "যে মারা গেল তো গেল, আমরাতো বেঁচে আছি, ফূর্তি করছি" -- এটা ছিল তাদের মেন্টালিটি। পরবর্তীতে যখন বছর বছর পরিসংখ্যান প্রকাশ হতে শুরু করলো, তখন দেখা গেল যে সমাজের সবচেয়ে প্রোডাক্টিভ শ্রেণী, ইয়াং জেনারেশানের মাঝে সুইসাইড রেট অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাচ্ছে, তখন তারা বিষয়টা আমলে নিলো। কেননা, এরাই ভোগ-বিলাসের এই পশ্চিমা দুনিয়াকে সচল রাখে। পৃথিবীর প্রতিটা দেশেই ইয়াং ছেলেমেয়ে সবচে বেশি আউটপুট দেয় সমাজ / রাষ্ট্রকে। এই কারণে পশ্চিমা বিশ্ব সতর্ক হয়েছে, সুইসাইড প্রিভেনশান সেন্টার খুলেছে; "আহারে, মানুষ তো!" -- এমন কোনো মানবিকতা থেকে নয়।
পর্নোগ্রাফির মাফিয়ারা যেমন ইয়াং ছেলেমেয়েরা যেখানে জড়ো হয়, সেই জায়গায় গিয়ে হাজির হয়, তেমনি এখন সুইসাইড প্রিভেনশান সেন্টারগুলো ইয়াং ছেলেমেয়েদের পিছু নেয়ার মত করে তাদের সামনে হাজির হবার চেষ্টা করছে। সেকারণে ইন্টারনেট, ফেইসবুক -- এগুলোতে "thinking of suicide? just give us a call, we'll call you back" এই টাইপের নানান কথা দিয়ে "মানুষ বাঁচানোর" চেষ্টা করছে। কিন্তু খুব কমই কাজ দিচ্ছে।
আমি এখন এস্টোনিয়াতে। ফিনল্যান্ড, রাশিয়ার পাশে ১৩ লাখ জনসংখ্যার একটা ছোট দেশ। এখানে তেমন কোনো ক্রাইম নেই, সমস্যা একটাই, পানির চেয়ে মদ সস্তা। পার্কের বেঞ্চিতে প্রায়ই দেখি বয়স্ক লোকজন মদের বোতল হাতে বসে আছে। পাশ দিয়ে যাবার সময় তাদের দিকে তাকাই। দেখি, ফ্যালফ্যাল চোখে চেয়ে আছে। সেই দৃষ্টিতেই বোঝা যায়, দেহ আছে, প্রাণ আছে, আত্মা নেই। নেশা সব শেষ করে দিয়েছে। কেন এমন হলো?
আর তরুণ ছেলেমেয়েরাও প্রচুর মদ খায়। রাত তিনটা চারটার সময় প্রচণ্ড ঠান্ডার মধ্যে দেখা যায় ফুটপাথ ধরে হেঁটে যাচ্ছে। একজন আরেকজনে ধরে হাঁটছে, যেন পড়ে না যায়। টলছে। সেদিন ইউনিভার্সিটি থেকে রাতের বেলা আমরা কয়েকজন ফিরছি, বলা যায় প্রায় দৌড়েই আমাদের দিকে দুটো ছেলেমেয়ে আসলো। কেমন অস্বাভাবিকভাবে হাসছিলো তারা। বয়স ১৮-২০ হবে বড়জোর। এসে বলছে, "gimme a hug, gimme a hug" (give me a hug -- আমাকে একটু জড়িয়ে ধরো)।
আমি একটু পা চালিয়ে মেয়েটাকে এড়িয়ে দুই কদম সামনে এলাম, ছেলেটা হাত বাড়িয়েছে, তাকে একটা hug দিলাম, তারপর তাকিয়ে একটা হাসি দিলাম। তারা দুইজন hug নিয়ে চলে গেল। এ-ই কি জীবন! প্রচণ্ড নেশা করে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলা!
এদের অনেকেই নেশা করে কেবলমাত্র মস্তিষ্কের / আত্মার যেসব অনুভূতি তারা handle করতে পারে না, সেগুলিকে চাপা দিয়ে রাখার জন্য। এভাবে চাপা দিয়ে রাখতে রাখতে নিজেকে শেষ করে ফেলে। আর অনুভূতিগুলো বেশি তীব্র হলে করে সুইসাইড। এদেরকে কে একটু প্রাণের স্পর্শ দেবে, জীবনে অন্ততঃ একবারের জন্য হলেও প্রাণভরে নিঃশ্বাস নিতে শেখাবে? কোনো সুইসাইড প্রিভেনশন সেন্টারে কাজ হবে না। কাজ হয় না বললেই চলে। সেখানে কয়েকজন সাইকোলজিস্ট সাইকিয়াট্রিস্ট এসে বসে থাকেন। তারা এক সমস্যা চাপা দিতে নতুন সমস্যার বুদ্ধি দেন। "Are you feeling depressed? Go on a vacation." -- এই টাইপের বুদ্ধি। "He/she dumped you? Maybe it's time to hang out with good old friends." এসব হলো তাদের বুদ্ধি। এক সমস্যাকে আরেক সমস্যা দিয়ে চাপা দেয়া!
ইউনিভার্সিটিতে তিন দিন ধরে ওরিয়েন্টেশান হয়েছিল। প্রথমদিনে পুলিশ, ডাক্তার, সাইকিয়াট্রিস্ট ইত্যাদি লোকজন এসে কথা বলল। স্টুডেন্ট কাউন্সেলিঙের সেই মহিলা বলল, যেকোনো সমস্যায় আমাদের সাথে কথা বলতে পারেন : রুমমেটের সাথে রিলেশান, প্রফেসরের সাথে রিলেশান, ইত্যাদি ইত্যাদি...।
বুঝলাম, এগুলো এখানে বড় ধরণের সমস্যা, সেকারণেই মেনশন করেছে।
আমি জানি এরা কোনো সমাধান দিতে পারে না। সমাধান দেবে কি, তারাতো নিজেরাই রোগী!
"দোস্ত আমার ভাল্লাগতেসে না, তোরা একটু বাসায় আয়।"
-- "ক্যান, তোর হাজব্যান্ড তোরে টাইম দেয় না? হা হা হা।"
কিছুদিন পর টিনএজার মেয়েটা সুইসাইড করলো। সেই, "দোস্তরা" এখন কেবলই আফসোস করে, ইশ, তখন কেন বুঝলাম না। আমার ছাত্রের কাছে শোনা এই অভিজ্ঞতা।
বাংলাদেশে গ্রামে আত্মহত্যার হার শহরের চেয়ে ১৭ গুণ বেশি। এবং সেই মানুষেরা আমাদের অধিকাংশেরই reach এর বাইরে। আমরা কী-ই বা করতে পারি তাদের জন্য?
আমাদের শহুরে ছেলেমেয়েদের সার্কেল কতটুকইবা? স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটি। কয়েকশো মানুষ। অন্ততঃ তাদেরকে আমরা ভালোবাসতে পারি। তাদের জন্য কিছু করতে পারি। তাদেরকে "ভাল্লাগতেসে না" কথার জবাবে বাঁচাতে পারি।
আমি জানি, এবং আপনারাও অনেকে জানেন যে, "দোস্ত ভাল্লাগতেসে না" এই কথাটা মুখ ফুটে বলবার আগেই অনেকে দুনিয়াটা ছেড়ে যাচ্ছে। চিন্তা করে দেখেন, যে মারা যেতে চায়, সে কেন সুইসাইড প্রিভেনশান সেন্টারে কল দেবে?
যার ভিতরে অনেক অভিমান জমে আছে, সে হয়ত মরে গিয়ে সর্বোচ্চ ভালোবাসাটুকু পেতে চাইছে, সেতো কাউকেই কিছু বলবে না।
আর সাইকিয়াট্রিস্ট, যারা "বিষণ্নতা, ডিপ্রেশান" ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করেন এবং এগুলোকে "মানসিক রোগ" হিসেবে আইডেন্টিফাই করেন, তারা আসলে এই ক্ষেত্রে খুব কমই সমাধান দিতে পারছেন। কেননা, দেহের রোগীকে রোগী বলা যায়, কিন্তু মনের রোগীকে রোগী বলা যায় না। আত্মার রোগীকেও মুখে বলা যায় না, তুমি রোগী। একারণেই সাইকিয়াট্রিস্টদের ট্রিটমেন্ট খুব কম কাজে আসে। তারা কিছু ওষুধ দেন, যা নার্ভকে শিথিল করে। আর হয়ত কিছু কাউন্সেলিং করেন, কিন্তু তা স্থায়ী হয় না।
কারণ এখানে দরকার পারস্পেক্টিভের চেইঞ্জ। সেটা কেবল তারাই করতে পারবে, যাদের সাথে সে সবসময় থাকে। সৎসঙ্গে সর্গবাস। আমরা চাই কি না চাই, আমরা আর দশজনের সঙ্গী। ছোট হোক, বড় হোক, এক বা একাধিক সার্কেলে চলছি। প্রভাব রাখছি, প্রভাবিতও হচ্ছি। কেবল এতটুকুই করণীয় যে, কখনো যেন মন্দ দ্বারা প্রভাবিত না হই। সত্য, সঠিক, ভালো -- এগুলি যেন জানতে পারি ও তার সাথে দৃঢ়ভাবে লেগে থাকতে পারে। দশটা মানুষের সার্কেলে প্রবেশ করে যেন তাদের মত হয়ে না যাই, বরং তারা যেন আমার কাছের মানুষ হয়ে যায়, কেননা আমি কষ্ট করে হলেও মন্দকে এড়িয়ে ভালোকে আঁকড়ে ধরে আছি -- এমন যেন হতে পারি। তখন আর কিছুই করতে হবে না -- মানুষের প্রাণের চাহিদা, আত্মার চাহিদা -- এগুলি যখন সে জানতে পারবে, তখন কেবল তাকে একটু আলো দেখিয়ে দেয়াই যথেষ্ট। কোনো সুইসাইড প্রিভেনশন সেন্টার লাগবে না, সাইকিয়াট্রিস্টও লাগবে না। তখন বহুদিন পর দেখব, আমি আজো হয়ত সেই মোমবাতির মতই জ্বলছি, কিন্তু আমার থেকে একটুখানি আগুন নিয়ে বন্ধুটি শামস হয়ে গেছে। সেই সূর্যের উষ্ণতায় প্রাণ ফিরে পাচ্ছে আরো কত মানুষ!
"All your sufferings come from desiring things that cannot be had. Stop desiring and you won't suffer." -- Mowlana Rumi

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

টাকার ইতিহাস, মানি মেকানিজম ও ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের মহা জুলুম

(লেখাটি পিডিএফ আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।) **জালিমের বিরুদ্ধে বুদ্ধিবৃত্তিক সংগ্রাম**

জুলুমের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের মাস হলো মহররম মাস।
জালিমের মুখোশ উন্মোচনের মাস মহররম।
জুলুমের কূটকৌশল উন্মোচনের মাস মহররম।
আধুনিক সেকুলার গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় লেজিসলেশান (সংসদ), আর্মড ফোর্সেস (আর্মি) ও জুডিশিয়ারি (আদালত) হলো এক মহা জুলুমের ছদ্মবেশী তিন যন্ত্র, যারা পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করে জুলুম টিকিয়ে রাখার জন্য।
তারচেয়েও বড় জালিম হলো big corporations: বড় বড় মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি, যারা তাবৎ দুনিয়াকে দাস বানিয়ে রেখেছে।
আর এই দাসত্বের শৃঙ্খলে তারা আমাদেরকে আবদ্ধ করেছে ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের মাধ্যমে:
টাকা আমাদের শ্রমকে ধারণ করে, অথচ সেই টাকার মূল্য আপ-ডাউন করায় অন্যরা -- ব্যাংক ব্যবসায়ীরা!
টাকা আমাদের শ্রমকে সঞ্চয় করার মাধ্যম,
অথচ সেই টাকা আমরা প্রিন্ট করি না, প্রিন্ট করে (ব্যাংকের আড়ালে) কিছু ব্যবসায়ী! সেই টাকার মান কমে যাওয়া (বা বেড়ে যাওয়া) আমরা নির্ধারণ করি না -- নির্ধারণ করে ব্যাঙ্ক (ব্যবসায়ীরা)!
ইমাম হুসাইনের (আ.) প্রতিবাদী চেতনাকে ধারণ করব, শোকাহত হব কারবালার স্মরণে, অভিশাপ দেব জালি…

ধর্মব্যবসা: মুসলমানদের হাতে ইসলাম ধ্বংসের অতীত-বর্তমান (১)

ভূমিকা যদিও পলিটিকাল-রিলিজিয়াস ইস্যুতে নিশ্ছিদ্র আর্গুমেন্ট উপস্থাপন করে আলোচনা করার অভ্যাস আমার, কিন্তু এখানে বিস্তারিত ইতিহাস তুলে ধরে আর্গুমেন্ট করার প্রথমতঃ ইচ্ছা নেই, দ্বিতীয়তঃ সময় ও সুযোগ নেই। আমি যা সত্য বলে জানি, তা সংক্ষেপে তুলে ধরছি। যারা আমার উপর আস্থা রাখেন তাদের জন্য এই লেখাটি সোর্স অব ইনফরমেশান, উন্মুক্ত হৃদয়ের মানুষদের জন্য সত্য অনুসন্ধানের নতুন কিছু টপিক, আর প্রেজুডিসড ধর্মান্ধ রোগগ্রস্ত অন্তরের জন্য রোগ বৃদ্ধির উছিলা। শেষ পর্যন্ত আর্গুমেন্ট ও ডায়লগের দুয়ার উন্মুক্ত রাখার পক্ষপাতী আমি, কিন্তু সেই আর্গুমেন্ট অবশ্যই সত্য উন্মোচনের নিয়তে হওয়া উচিত, নিজের দীর্ঘদিনের লালিত বিশ্বাস ও ধ্যান ধারণাকে প্রতিষ্ঠা করবার উদ্দেশ্যে নয়। মক্কা-মদীনা: মুহাম্মদ (সা.) থেকে আলে-সৌদ (৬২৯-১৯২৪) এদেশের অধিকাংশ মানুষ মক্কা-মদীনার ইতিহাস কেবল এতটুকু জানেন যে, মুহাম্মদ (সা.) মদীনায় ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন এবং পরবর্তীতে বিনা রক্তপাতে মক্কা বিজয় করেন। কিন্তু প্রায় চৌদ্দশ’ বছর আগে মুহাম্মদ (সা.) এর প্রতিষ্ঠিত ইসলামী রাষ্ট্র থেকে আজকের রাজতান্ত্রিক সৌদি আরবের ইতিহাস কম মানুষই জানেন। পবিত্র ম…

পিস টিভি, জাকির নায়েক ও এজিদ প্রসঙ্গ

সম্প্রতি গুলশান হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ইন্ডিয়া ও বাংলাদেশে পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধ করা হয়েছে। আমি তখন দিল্লীতে ছিলাম। দেশে ফিরে শুনি পিস টিভি ব্যান করা হয়েছে বাংলাদেশে, এবং তার আগে ইন্ডিয়াতে।

আমার বাসায় টিভি নেই, এবং আমি জাকির নায়েকের লেকচার শুনিও না। কিংবা পিস টিভিতে যারা লেকচার দেন, বাংলা কিংবা ইংলিশ -- কোনোটাই শুনি না; প্রয়োজন হয় না। তাছাড়া আমার ইসলামের বুঝ জাকির নায়েকসহ পিস টিভি ও তার বক্তাদেরকে ইন জেনারেল আমার কাছে অগ্রহণযোগ্য করে তুলেছে। Peace TV বন্ধ হওয়ায় এদেশে বিকৃত ইসলাম প্রসারের গতি কমলো -- এটাই আমার মনে হয়েছে।

একইসাথে আমি এটাও মনে করি যে, যেই অভিযোগ পিস টিভিকে ব্যান করা হয়েছে, তা নিছক অজুহাত। জাকির নায়েক কখনো জঙ্গীবাদকে উস্কে দিয়েছেন বলে আমার জানা নেই। কিংবা পিস টিভির লেকচার শুনে শুনে ISIS জঙ্গীরা সন্ত্রাসী হয়েছে -- এটা নিতান্তই হাস্যকর কথা। ISIS এর ধর্মতাত্ত্বিক বেইজ সম্পর্কে মোটেও ধারণা নেই, এমন লোকের পক্ষেই কেবল ISIS এর জন্য জাকির নায়েককে দোষ দেয়া সম্ভব। একইসাথে আমি এ বিষয়েও সচেতন যে, পিস টিভি বন্ধ করা হয়েছে আমাদের সরকারের রেগুলার “ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের অংশ” হিসেবে, এই জন…